কোয়েল - দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ

[নবম-দশম শ্রেণির কৃষিশিক্ষা বইয়ের সপ্তম অধ্যায়ে কোয়েলের উল্লেখ আছে]
কোয়েল (Quail) Galliformes বর্গের Phasianidae গোত্রের মুরগিজাতীয় ছোট আকারের পাখি। দেখতে অনেকটা তিতিরের মতো হলেও এরা আকারে এর চেয়ে অনেক ছোট। পৃথিবীতে প্রায় ১৮ প্রজাতির কোয়েল আছে। বাংলাদেশসহ ভারতীয় উপমহাদেশে চার-পাঁচটি কোয়েলের জাত দেখা যায়। এদের বেশির ভাগই এখন গৃহপালিত ও হাঁস-মুরগির মতো পাখি (bird) হিসেবে সুপরিচিত।

kalerkanthoকোয়েল প্রজাতিভেদে ১৫-২০ সেন্টিমিটার দৈর্ঘ্যের হয় এবং ওজন হয় ১২০ থেকে ১৫০ গ্রাম। এরা সাধারণত হালকা ধূসর বর্ণের। কোনো কোনো প্রজাতির পেটের পালকে ডোরা দাগ বা ফোটা থাকে। কতক প্রজাতির পুরুষের দেহের দুই পাশে হালকা নীল রঙের আভা দেখা যায়। অনেকের গলার নিচে রিংয়ের মতো

সাদা দাগ থাকে।

লাভজনক হওয়ায় বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে কোয়েল পাখি পালন এখন বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এ দেশে Coturnix coromandelica ও Turnix tanki স্থানীয় প্রজাতির পাশাপাশি জাপানি Coturnix japonica প্রজাতিটি ব্যাপকভাবে পালন করা হচ্ছে। কোয়েলের মাংস ও ডিম বেশ সুস্বাদু বলে আমাদের দেশসহ বিশ্ববাজারে এর চাহিদা অনেক।

কোয়েল শান্ত স্বভাবের পাখি। তাই এদের পোষ মানানো ও পালন করা তুলনামূলক সহজ। এ ছাড়া এদের লালন-পালনের জন্য বেশি জায়গার প্রয়োজন হয় না। খাঁচায় কোয়েল পালন করা সবচেয়ে ভালো। কোয়েলের খাঁচার দৈর্ঘ্য সাধারণত ১৩০ থেকে ১৫০ সেন্টিমিটার, প্রস্থ ৬০ থেকে ১০০ সেন্টিমিটার এবং উচ্চতা ২৫ থেকে ৪০ সেন্টিমিটার হয়। এ ধরনের একটি খাঁচায় ৬০ থেকে

১০০টি কোয়েল পালন করা যায়। একটি খাঁচার ওপর আরেকটি খাঁচা স্থাপন করা যায়। কোয়েলের জন্য খাবার ও পানির ব্যবস্থা খাঁচায়ই রাখতে হয়। খাঁচা সব সময় শুষ্ক ও পরিষ্কার রাখা উত্তম।

স্ত্রী কোয়েল বছরে ২০০ থেকে ২৫০টি ডিম দেয়। এক একটি ডিমের ওজন সাধারণত ৮ থেকে ১২ গ্রাম হয়। কোয়েলের গৃহপালিত প্রজাতিগুলো ডিমে তা দেয় না। তাই কৃত্রিম উপায়ে ডিম ফোটাতে হয়। ডিম থেকে ১৭-১৮ দিনের মধ্যে বাচ্চা বের হয় এবং ৬-৭ সপ্তাহের মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক হয় ও ডিম উৎপাদন শুরু করে।

বন্য অবস্থায় কোয়েল বাংলাদেশে পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় কদাচিৎ চোখে পড়ে। এ দেশের প্রাকৃতিক পরিবেশে এদের জীবনপদ্ধতি সম্পর্কে খুব কমই জানা গেছে।

[আরো বিস্তারিত

জানতে বাংলাপিডিয়া, উইকিপিডিয়া ও পত্রপত্রিকায় কোয়েল সম্পর্কিত লেখাগুলো পড়তে পারো।]

[নবম-দশম শ্রেণির কৃষিশিক্ষা বইয়ের সপ্তম অধ্যায়ে কোয়েলের উল্লেখ আছে]
কোয়েল (Quail) Galliformes বর্গের Phasianidae গোত্রের মুরগিজাতীয় ছোট আকারের পাখি। দেখতে অনেকটা তিতিরের মতো হলেও এরা আকারে এর চেয়ে অনেক ছোট। পৃথিবীতে প্রায় ১৮ প্রজাতির কোয়েল আছে। বাংলাদেশসহ ভারতীয় উপমহাদেশে চার-পাঁচটি কোয়েলের জাত দেখা যায়। এদের বেশির ভাগই এখন গৃহপালিত ও হাঁস-মুরগির মতো পাখি (bird) হিসেবে সুপরিচিত।

kalerkanthoকোয়েল প্রজাতিভেদে ১৫-২০ সেন্টিমিটার দৈর্ঘ্যের হয় এবং ওজন হয় ১২০ থেকে ১৫০ গ্রাম। এরা সাধারণত হালকা ধূসর বর্ণের। কোনো কোনো প্রজাতির পেটের পালকে ডোরা দাগ বা ফোটা থাকে। কতক প্রজাতির পুরুষের দেহের দুই পাশে হালকা নীল রঙের আভা দেখা যায়। অনেকের গলার নিচে রিংয়ের মতো

সাদা দাগ থাকে।

লাভজনক হওয়ায় বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে কোয়েল পাখি পালন এখন বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এ দেশে Coturnix coromandelica ও Turnix tanki স্থানীয় প্রজাতির পাশাপাশি জাপানি Coturnix japonica প্রজাতিটি ব্যাপকভাবে পালন করা হচ্ছে। কোয়েলের মাংস ও ডিম বেশ সুস্বাদু বলে আমাদের দেশসহ বিশ্ববাজারে এর চাহিদা অনেক।

কোয়েল শান্ত স্বভাবের পাখি। তাই এদের পোষ মানানো ও পালন করা তুলনামূলক সহজ। এ ছাড়া এদের লালন-পালনের জন্য বেশি জায়গার প্রয়োজন হয় না। খাঁচায় কোয়েল পালন করা সবচেয়ে ভালো। কোয়েলের খাঁচার দৈর্ঘ্য সাধারণত ১৩০ থেকে ১৫০ সেন্টিমিটার, প্রস্থ ৬০ থেকে ১০০ সেন্টিমিটার এবং উচ্চতা ২৫ থেকে ৪০ সেন্টিমিটার হয়। এ ধরনের একটি খাঁচায় ৬০ থেকে

১০০টি কোয়েল পালন করা যায়। একটি খাঁচার ওপর আরেকটি খাঁচা স্থাপন করা যায়। কোয়েলের জন্য খাবার ও পানির ব্যবস্থা খাঁচায়ই রাখতে হয়। খাঁচা সব সময় শুষ্ক ও পরিষ্কার রাখা উত্তম।

স্ত্রী কোয়েল বছরে ২০০ থেকে ২৫০টি ডিম দেয়। এক একটি ডিমের ওজন সাধারণত ৮ থেকে ১২ গ্রাম হয়। কোয়েলের গৃহপালিত প্রজাতিগুলো ডিমে তা দেয় না। তাই কৃত্রিম উপায়ে ডিম ফোটাতে হয়। ডিম থেকে ১৭-১৮ দিনের মধ্যে বাচ্চা বের হয় এবং ৬-৭ সপ্তাহের মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক হয় ও ডিম উৎপাদন শুরু করে।

বন্য অবস্থায় কোয়েল বাংলাদেশে পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় কদাচিৎ চোখে পড়ে। এ দেশের প্রাকৃতিক পরিবেশে এদের জীবনপদ্ধতি সম্পর্কে খুব কমই জানা গেছে।

[আরো বিস্তারিত

জানতে বাংলাপিডিয়া, উইকিপিডিয়া ও পত্রপত্রিকায় কোয়েল সম্পর্কিত লেখাগুলো পড়তে পারো।]

ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল
আপডেটঃ ৪ নভেম্বর, ২০২১
৯:০৮ পূর্বাহ্ণ
11 ভিউ

কোয়েল

ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল
আপডেটঃ ৪ নভেম্বর, ২০২১ | ৯:০৮ 11 ভিউ

[নবম-দশম শ্রেণির কৃষিশিক্ষা বইয়ের সপ্তম অধ্যায়ে কোয়েলের উল্লেখ আছে] কোয়েল (Quail) Galliformes বর্গের Phasianidae গোত্রের মুরগিজাতীয় ছোট আকারের পাখি। দেখতে অনেকটা তিতিরের মতো হলেও এরা আকারে এর চেয়ে অনেক ছোট। পৃথিবীতে প্রায় ১৮ প্রজাতির কোয়েল আছে। বাংলাদেশসহ ভারতীয় উপমহাদেশে চার-পাঁচটি কোয়েলের জাত দেখা যায়। এদের বেশির ভাগই এখন গৃহপালিত ও হাঁস-মুরগির মতো পাখি (bird) হিসেবে সুপরিচিত। kalerkanthoকোয়েল প্রজাতিভেদে ১৫-২০ সেন্টিমিটার দৈর্ঘ্যের হয় এবং ওজন হয় ১২০ থেকে ১৫০ গ্রাম। এরা সাধারণত হালকা ধূসর বর্ণের। কোনো কোনো প্রজাতির পেটের পালকে ডোরা দাগ বা ফোটা থাকে। কতক প্রজাতির পুরুষের দেহের দুই পাশে হালকা নীল রঙের আভা দেখা যায়। অনেকের গলার নিচে রিংয়ের মতো সাদা

দাগ থাকে। লাভজনক হওয়ায় বাংলাদেশের বিভিন্ন স্থানে কোয়েল পাখি পালন এখন বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে। এ দেশে Coturnix coromandelica ও Turnix tanki স্থানীয় প্রজাতির পাশাপাশি জাপানি Coturnix japonica প্রজাতিটি ব্যাপকভাবে পালন করা হচ্ছে। কোয়েলের মাংস ও ডিম বেশ সুস্বাদু বলে আমাদের দেশসহ বিশ্ববাজারে এর চাহিদা অনেক। কোয়েল শান্ত স্বভাবের পাখি। তাই এদের পোষ মানানো ও পালন করা তুলনামূলক সহজ। এ ছাড়া এদের লালন-পালনের জন্য বেশি জায়গার প্রয়োজন হয় না। খাঁচায় কোয়েল পালন করা সবচেয়ে ভালো। কোয়েলের খাঁচার দৈর্ঘ্য সাধারণত ১৩০ থেকে ১৫০ সেন্টিমিটার, প্রস্থ ৬০ থেকে ১০০ সেন্টিমিটার এবং উচ্চতা ২৫ থেকে ৪০ সেন্টিমিটার হয়। এ ধরনের একটি খাঁচায় ৬০ থেকে ১০০টি

কোয়েল পালন করা যায়। একটি খাঁচার ওপর আরেকটি খাঁচা স্থাপন করা যায়। কোয়েলের জন্য খাবার ও পানির ব্যবস্থা খাঁচায়ই রাখতে হয়। খাঁচা সব সময় শুষ্ক ও পরিষ্কার রাখা উত্তম। স্ত্রী কোয়েল বছরে ২০০ থেকে ২৫০টি ডিম দেয়। এক একটি ডিমের ওজন সাধারণত ৮ থেকে ১২ গ্রাম হয়। কোয়েলের গৃহপালিত প্রজাতিগুলো ডিমে তা দেয় না। তাই কৃত্রিম উপায়ে ডিম ফোটাতে হয়। ডিম থেকে ১৭-১৮ দিনের মধ্যে বাচ্চা বের হয় এবং ৬-৭ সপ্তাহের মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক হয় ও ডিম উৎপাদন শুরু করে। বন্য অবস্থায় কোয়েল বাংলাদেশে পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকায় কদাচিৎ চোখে পড়ে। এ দেশের প্রাকৃতিক পরিবেশে এদের জীবনপদ্ধতি সম্পর্কে খুব কমই জানা গেছে। [আরো বিস্তারিত জানতে

বাংলাপিডিয়া, উইকিপিডিয়া ও পত্রপত্রিকায় কোয়েল সম্পর্কিত লেখাগুলো পড়তে পারো।]

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ: