টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ স্বরূপে দেখা দিল কোহলির ভারত - দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ

টানা দুই হারে বিশ্বকাপে খাদের কিনারায় চলে যাওয়া ভারত কাল পতন ঠেকিয়েছে আফগানিস্তানকে হারিয়ে। যে ভারতকে দেখে অভ্যস্ত সবাই, চওড়া ব্যাটের সেই দলটিই ফিরেছিল স্বমহিমায়। রোহিত শর্মা-লোকেশ রাহুলের স্ট্রোকের ফুলঝুরিতে এ আসরে সর্বোচ্চ ২১০ রানের সংগ্রহ দাঁড় করালে আফগানদের আর খুব একটা আশা থাকে না। পারেওনি তারা। ৭ উইকেটে ১৪৪ রানে থেমে গেছে তাদের ইনিংস, তাতে ৬৬ রানের বড় জয় নিয়েই এখন বাকি ম্যাচগুলোর দিকে তাকিয়ে বিরাট কোহলির দল।

এদিনই স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ১৬ রানে আসরে নিজেদের দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছে নিউজিল্যান্ড। মার্টিন গাপটিলের ৯৩ রানের ইনিংসে ভর করে ৫ উইকেটে ১৭২ করে তারা। স্কটিশরাও মারকুটে ব্যাটিংয়ে সেই রান তাড়া করে শেষ

পর্যন্ত ৫ উইকেটে থেমেছে ১৫৬ রানে। নিউজিল্যান্ড, ভারত—দুই দলেরই এখন বাকি ২ ম্যাচ। নিউজিল্যান্ড টানা দুটি জিতে গেলে তারাই খেলবে সেমিতে। তার দুটিতে বা একটিতেও হেরে গেলে ভারত নিজেদের দুই ম্যাচ জিতে সেমির দরজা খুঁজতে পারে, তবে সে ক্ষেত্রেও রান রেট বাড়িয়ে নিতে হবে। অর্থাৎ অনেক যদি, কিন্তুর ব্যাপার। তবে সেই ক্ষীণ আলোর রেখা ধরেই কোহলিদের কাল নতুন যাত্রা শুরু হয়েছে এই বিশ্বকাপে। রোহিত-রাহুলের ব্যাটিংয়েই কাল ম্যাচের স্টিয়ারিং নিয়ে নেয় তারা। ৮৯ বলে ১৪০ রানের ওপেনিং জুটি দুজনের। রোহিত ৩ ছক্কা, ৮ চারে ৭৪ রান করে আউট হয়েছেন ৪৭ বল খেলে। রাহুল ৪৮ বলে করেছেন ৬৯। শেষ দিকে ঋষভ পান্ট

ও হার্দিক পাণ্ডের ব্যাটেও রান ঝরেছে। তাতেই ২ উইকেটে এই আসরের সবচেয়ে বড় ইনিংস তাদের। আফগান বোলিংয়ে মুজিব-উর রহমানের অভাবটা ছিল স্পষ্ট। রশিদ খান ৪ ওভারে ৩৬ রান দিয়ে উইকেট পাননি।

ব্যাটিংয়ে হজরতউল্লাহ জাজাই, রহমানুল্লাহ গুরবাজরা বড় শট খেলে লড়াইয়ের ইঙ্গিত দিলেও বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। শেষ দিকে ২২ বলে সর্বোচ্চ ৪২ করেছেন করিম জানাত, মোহাম্মদ নবী করেছেন ৩৫। ৩ উইকেট তুলে নিয়েছেন মোহাম্মদ শামি।

আগের ম্যাচে ক্লান্তি ভর করেছিল যেন মার্টিন গাপটিলের ওপর। তাই অনেক কাছে গিয়েও তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারটা ছুঁতে পারেননি। তবে তাঁর বিধ্বংসী ইনিংসের ওপরই দাঁড়িয়েছিল নিউজিল্যান্ডের সৌভাগ্য! আসলে সৌভাগ্যই। প্রথম ইনিংস শেষে তাদের ১৭২ রানকে অনেক বড়

মনে হলেও স্কটল্যান্ডের ব্যাটাররা সেটাকে ভুল প্রমাণ করতে মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন। বোল্ট-সোধিদের বলেকয়ে চার-ছক্কা মারছিলেন। কিন্তু শেষটায় আর পারেননি। ১৬ রান দূরে থেমেছে তাঁদের ইনিংস।

টানা দুই হারে বিশ্বকাপে খাদের কিনারায় চলে যাওয়া ভারত কাল পতন ঠেকিয়েছে আফগানিস্তানকে হারিয়ে। যে ভারতকে দেখে অভ্যস্ত সবাই, চওড়া ব্যাটের সেই দলটিই ফিরেছিল স্বমহিমায়। রোহিত শর্মা-লোকেশ রাহুলের স্ট্রোকের ফুলঝুরিতে এ আসরে সর্বোচ্চ ২১০ রানের সংগ্রহ দাঁড় করালে আফগানদের আর খুব একটা আশা থাকে না। পারেওনি তারা। ৭ উইকেটে ১৪৪ রানে থেমে গেছে তাদের ইনিংস, তাতে ৬৬ রানের বড় জয় নিয়েই এখন বাকি ম্যাচগুলোর দিকে তাকিয়ে বিরাট কোহলির দল।

এদিনই স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ১৬ রানে আসরে নিজেদের দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছে নিউজিল্যান্ড। মার্টিন গাপটিলের ৯৩ রানের ইনিংসে ভর করে ৫ উইকেটে ১৭২ করে তারা। স্কটিশরাও মারকুটে ব্যাটিংয়ে সেই রান তাড়া করে শেষ

পর্যন্ত ৫ উইকেটে থেমেছে ১৫৬ রানে। নিউজিল্যান্ড, ভারত—দুই দলেরই এখন বাকি ২ ম্যাচ। নিউজিল্যান্ড টানা দুটি জিতে গেলে তারাই খেলবে সেমিতে। তার দুটিতে বা একটিতেও হেরে গেলে ভারত নিজেদের দুই ম্যাচ জিতে সেমির দরজা খুঁজতে পারে, তবে সে ক্ষেত্রেও রান রেট বাড়িয়ে নিতে হবে। অর্থাৎ অনেক যদি, কিন্তুর ব্যাপার। তবে সেই ক্ষীণ আলোর রেখা ধরেই কোহলিদের কাল নতুন যাত্রা শুরু হয়েছে এই বিশ্বকাপে। রোহিত-রাহুলের ব্যাটিংয়েই কাল ম্যাচের স্টিয়ারিং নিয়ে নেয় তারা। ৮৯ বলে ১৪০ রানের ওপেনিং জুটি দুজনের। রোহিত ৩ ছক্কা, ৮ চারে ৭৪ রান করে আউট হয়েছেন ৪৭ বল খেলে। রাহুল ৪৮ বলে করেছেন ৬৯। শেষ দিকে ঋষভ পান্ট

ও হার্দিক পাণ্ডের ব্যাটেও রান ঝরেছে। তাতেই ২ উইকেটে এই আসরের সবচেয়ে বড় ইনিংস তাদের। আফগান বোলিংয়ে মুজিব-উর রহমানের অভাবটা ছিল স্পষ্ট। রশিদ খান ৪ ওভারে ৩৬ রান দিয়ে উইকেট পাননি।

ব্যাটিংয়ে হজরতউল্লাহ জাজাই, রহমানুল্লাহ গুরবাজরা বড় শট খেলে লড়াইয়ের ইঙ্গিত দিলেও বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। শেষ দিকে ২২ বলে সর্বোচ্চ ৪২ করেছেন করিম জানাত, মোহাম্মদ নবী করেছেন ৩৫। ৩ উইকেট তুলে নিয়েছেন মোহাম্মদ শামি।

আগের ম্যাচে ক্লান্তি ভর করেছিল যেন মার্টিন গাপটিলের ওপর। তাই অনেক কাছে গিয়েও তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারটা ছুঁতে পারেননি। তবে তাঁর বিধ্বংসী ইনিংসের ওপরই দাঁড়িয়েছিল নিউজিল্যান্ডের সৌভাগ্য! আসলে সৌভাগ্যই। প্রথম ইনিংস শেষে তাদের ১৭২ রানকে অনেক বড়

মনে হলেও স্কটল্যান্ডের ব্যাটাররা সেটাকে ভুল প্রমাণ করতে মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন। বোল্ট-সোধিদের বলেকয়ে চার-ছক্কা মারছিলেন। কিন্তু শেষটায় আর পারেননি। ১৬ রান দূরে থেমেছে তাঁদের ইনিংস।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ স্বরূপে দেখা দিল কোহলির ভারত

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৪ নভেম্বর, ২০২১ | ৯:৩১ 11 ভিউ

টানা দুই হারে বিশ্বকাপে খাদের কিনারায় চলে যাওয়া ভারত কাল পতন ঠেকিয়েছে আফগানিস্তানকে হারিয়ে। যে ভারতকে দেখে অভ্যস্ত সবাই, চওড়া ব্যাটের সেই দলটিই ফিরেছিল স্বমহিমায়। রোহিত শর্মা-লোকেশ রাহুলের স্ট্রোকের ফুলঝুরিতে এ আসরে সর্বোচ্চ ২১০ রানের সংগ্রহ দাঁড় করালে আফগানদের আর খুব একটা আশা থাকে না। পারেওনি তারা। ৭ উইকেটে ১৪৪ রানে থেমে গেছে তাদের ইনিংস, তাতে ৬৬ রানের বড় জয় নিয়েই এখন বাকি ম্যাচগুলোর দিকে তাকিয়ে বিরাট কোহলির দল। এদিনই স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ১৬ রানে আসরে নিজেদের দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছে নিউজিল্যান্ড। মার্টিন গাপটিলের ৯৩ রানের ইনিংসে ভর করে ৫ উইকেটে ১৭২ করে তারা। স্কটিশরাও মারকুটে ব্যাটিংয়ে সেই রান তাড়া করে শেষ

পর্যন্ত ৫ উইকেটে থেমেছে ১৫৬ রানে। নিউজিল্যান্ড, ভারত—দুই দলেরই এখন বাকি ২ ম্যাচ। নিউজিল্যান্ড টানা দুটি জিতে গেলে তারাই খেলবে সেমিতে। তার দুটিতে বা একটিতেও হেরে গেলে ভারত নিজেদের দুই ম্যাচ জিতে সেমির দরজা খুঁজতে পারে, তবে সে ক্ষেত্রেও রান রেট বাড়িয়ে নিতে হবে। অর্থাৎ অনেক যদি, কিন্তুর ব্যাপার। তবে সেই ক্ষীণ আলোর রেখা ধরেই কোহলিদের কাল নতুন যাত্রা শুরু হয়েছে এই বিশ্বকাপে। রোহিত-রাহুলের ব্যাটিংয়েই কাল ম্যাচের স্টিয়ারিং নিয়ে নেয় তারা। ৮৯ বলে ১৪০ রানের ওপেনিং জুটি দুজনের। রোহিত ৩ ছক্কা, ৮ চারে ৭৪ রান করে আউট হয়েছেন ৪৭ বল খেলে। রাহুল ৪৮ বলে করেছেন ৬৯। শেষ দিকে ঋষভ পান্ট

ও হার্দিক পাণ্ডের ব্যাটেও রান ঝরেছে। তাতেই ২ উইকেটে এই আসরের সবচেয়ে বড় ইনিংস তাদের। আফগান বোলিংয়ে মুজিব-উর রহমানের অভাবটা ছিল স্পষ্ট। রশিদ খান ৪ ওভারে ৩৬ রান দিয়ে উইকেট পাননি। ব্যাটিংয়ে হজরতউল্লাহ জাজাই, রহমানুল্লাহ গুরবাজরা বড় শট খেলে লড়াইয়ের ইঙ্গিত দিলেও বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। শেষ দিকে ২২ বলে সর্বোচ্চ ৪২ করেছেন করিম জানাত, মোহাম্মদ নবী করেছেন ৩৫। ৩ উইকেট তুলে নিয়েছেন মোহাম্মদ শামি। আগের ম্যাচে ক্লান্তি ভর করেছিল যেন মার্টিন গাপটিলের ওপর। তাই অনেক কাছে গিয়েও তিন অঙ্কের ম্যাজিক ফিগারটা ছুঁতে পারেননি। তবে তাঁর বিধ্বংসী ইনিংসের ওপরই দাঁড়িয়েছিল নিউজিল্যান্ডের সৌভাগ্য! আসলে সৌভাগ্যই। প্রথম ইনিংস শেষে তাদের ১৭২ রানকে অনেক বড়

মনে হলেও স্কটল্যান্ডের ব্যাটাররা সেটাকে ভুল প্রমাণ করতে মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন। বোল্ট-সোধিদের বলেকয়ে চার-ছক্কা মারছিলেন। কিন্তু শেষটায় আর পারেননি। ১৬ রান দূরে থেমেছে তাঁদের ইনিংস।

দৈনিক ডোনেট বাংলাদেশ সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ: